1. admin@agrajatra24.com : Agrajatra 24 :
  2. Ashrafalifaruki030@gmail.com : আশরাফ আলী ফারুকী : আশরাফ আলী ফারুকী
  3. editor@agrajatra.com : News :
অনিয়ম-দুর্নীতির অভিযোগ সুন্দরগঞ্জ উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তাদের বিরুদ্ধে - Agrajatra24.com
শুক্রবার, ০৭ অক্টোবর ২০২২, ১০:০৩ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম :
অতিরিক্ত ভাড়ায় ভোগান্তি পোহাতে হচ্ছে সাধারণ মানুষের নবীনগরে সুবিধাবঞ্চিত পথ শিশুদের মাঝে আনন্দগন সময় কাটালেন ইউএনও সরাইলে আইনজীবীর বাড়ীতে ডাকাতি সহ নগদ-৫ লক্ষ টাকার মালামাল লোট রাজশাহীতে পুত্রবধূর স্বীকৃতির দাবিতে অনশন করতে গিয়ে লাঞ্ছিতর অভিযোগ তাহেরপুর ৬৫০ পিছ ইয়াবা, ১২ গ্রাম হিরোইন ও নগদ ৬১ হাজার টাকা সহ আটক ১ বাঁশখালী ভূমি অফিসের দালাল ফোরকান এসি ল্যান্ডের হাতে আটক সুন্দরগঞ্জে শান্তিপূর্ণভাবে প্রতীমা বিসর্জন রাজাপুরে দোলনায় ঝুলতে গিয়ে গলায় ফাঁস শিশু শিক্ষার্থীর মৃত্যু যশোর শিক্ষা বোর্ডের এসএসসি পরীক্ষার হারিয়ে যাওয়া ৫০টি খাতা ১৩ ঘণ্টা পর উদ্ধার, সুন্দরগঞ্জ পৌর বাজারের সামন থেকে প্রকাশ্যে মটর সাইকেল চুরি আশুগঞ্জ থেকে ২০৩ বোতল ফেন্সিডিল’সহ ৩ মাদক ব্যবসায়ীকে আটক করেছে র‌্যাব-১৪ ভৈরব আশুগঞ্জ থেকে ২০৩ বোতল ফেন্সিডিল’সহ ৩ মাদক ব্যবসায়ীকে আটক করেছে র‌্যাব-১৪ ভৈরব শরীয়তপুরের ডামুড্যায় জাতীয় জন্ম ও মৃত্যু নিবন্ধন দিবস পালিত ঝালকাঠিতে হত্যার পাঁচ বছর পর কঙ্কাল উদ্ধার করলো সিআইডি পুলিশ ধামইরহাটে ৩ শতাধিক রোগীকে চিকিৎসা সেবা দিল সুফলা সমাজকল্যাণ সংস্থা না ফেরার দেশে চলে গেছে সাংবাদিক দীন মোহাম্মদ দিনু পানিতে ডুবে মৃত্যুরোধে ৩০ সংগঠন নিয়ে বাঁশখালী টাইমসের ক্যাম্পেইন পাইকগাছা জিরোপয়েন্টে বঙ্গবন্ধুর ম্যুরাল নির্মাণ কাজ পরিদর্শন করেন এমপি বাবু উত্তরবঙ্গ আইনজীবী সমিতির সভাপতি হলেন যুথী, রাজশাহী মহানগর যুবলীগের অভিনন্দন রাজশাহী পুঠিয়া পূজামন্ডব পরিদর্শন করলেন এমপি মনসুর রহমান

অনিয়ম-দুর্নীতির অভিযোগ সুন্দরগঞ্জ উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তাদের বিরুদ্ধে

  • সংবাদটি লিখা হয়েছে : বৃহস্পতিবার, ১১ আগস্ট, ২০২২
  • ২২ জন পড়েছে

স্টাফ করেসপন্ডেটঃ
সারা বিশ্বে বাংলাদেশ উন্নয়নের রোল মডেল হিসেবে পরিচিত। দুর্নীতিবাজরাই সমাজ ও দেশের উন্নয়নে এখন সবচেয়ে বড় বাধা হয়ে দাঁড়িয়েছে। তবে শিক্ষা খাতে দুর্নীতি হচ্ছে একটু বেশি। শিক্ষা খাতের শিক্ষাগুরুদের এখন নীতি নেই; অনিয়মে ঢাকা পড়েছে সব রীতিনীতি। শিক্ষা কর্মকর্তা, বড় একটা জায়গা দখল করে থাকেন। শিক্ষার্থীদের কাছে তাঁরা যেন দেবতুল্য। শিক্ষার তাহলে অবশিষ্ট আর কিছু থাকে না।

অনিয়ম আর দুর্নীতির আখড়ায় পরিণত হয়েছে গাইবান্ধার সুন্দরগঞ্জ উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তারা। শিক্ষকরা জিম্মি হয়ে পড়েছেন কিছু দুর্নীতিবাজ শিক্ষা কর্মকর্তা-কর্মচারীদের কাছে। ভুক্তভোগী শিক্ষকরা অভিযোগ করেছেন, উৎকোচ ছাড়া কোনো কাজ হয় না এ অফিসে। কোনভাবেই মিলছে না এর প্রতিকার। ধাপে ধাপে বাড়ছে তাদের উৎকোচ চাহিদা।

সুন্দরগঞ্জ উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার একেএম হারুন-উর- রশিদ ও সহকারি শিক্ষা অফিসার বিপ্লব হাসান মদিনার বিরুদ্ধে টাকা আত্মসাতসহ নানা দুর্নীতি-অনিয়মের অভিযোগ উঠেছে। বিভিন্ন অনিয়ম ও ঘুষ-দুর্নীতির অভিযোগ উপজেলার প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষকদের। টাকার বিনিময় তারা জুনিয়র শিক্ষক থেকে জিনিয়র শিক্ষক পদে পদোন্নতি করে।

প্রধান শিক্ষক ইয়াকুব আলী, নুরেহিনা আক্তার, মাছুমা খাতুন, হাসিনা বেগম, আইয়ুব হোসেন, মোস্তাফিজুর রহমান, শিরিনা বেগম, আমজাদ আলী, সহকারি শিক্ষক আব্দুল কুদ্দুসসহ অনেকেই এ অভিযোগ করেন।
পশ্চিম শিবরাম সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, পারের হাট খোলা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, পশ্চিম চন্ডিপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, খোর্দ্দা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, লাঠশালা পশ্চিম পাড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, পূর্ব ঘগোয়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, সোনারায় সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় সহ প্রায় ২০ টি প্রাথমিক বিদ্যালয় থেকে প্রত্যয়নপত্র দেয়াসহ বিভিন্ন অজুহাত দেখিয়ে ১০ হাজার টাকা করে প্রায় ২০ লাখ টাকা হাতিয়ে নিয়েছেন সুন্দরগঞ্জ উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা ।

অফিস সূত্রে জানা গেছে, চতুর্থ ধাপে প্রাথমিক শিক্ষা উন্নয়ন কর্মসূচি (পিইডিপি-৪) এর আওতায় উপজেলার ৯৪টি সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের মেরামত বাবদ ২০২১-২০২২ অর্থ বছরে প্রায় ১কোটি ৮৮ লাখ টাকা বরাদ্দ দেয়া হয়েছে। সেই মেরামতের বরাদ্দকৃত টাকার সম্পন্ন কাজ না করে আংশিক কিছু কাজ দেখিয়ে উপজেলা শিক্ষা কর্মকর্তা ও উপজেলা বিভিন্ন ক্লাস্টারের সহকারি কর্মকর্তারা বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষকদের কাছে ১০ হাজার হতে ২০ হাজার টাকা পর্যন্ত ঘুষ নিচ্ছে। কাজের মেয়াদ জুন/২০২২ খ্রিঃ তারিখের মধ্যে শেষ হওয়ার কথা। বিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ কাজ শেষ করে বিল ভাউচার জমা দিলেও তাদের টাকা ছাড়া বিলের চেক দিচ্ছে না উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার একেএম হারুন- উর-রশিদ। বিধি মোতাবেক বিদ্যালয়গুলোতে উন্নয়নমূলক কাজ শেষ হওয়ার সঙ্গে সঙ্গে তাদের বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষকদেরকে বিল চেক দেয়ার কথা।

এদিকে শিক্ষকরা জানান, মেরামতসহ বিদ্যালয়ের উন্নয়নমূলক কাজ শেষ করে বিল তুলতে গেলে কাজ সম্পন্ন করা হয়েছে মর্মে প্রত্যয়নপত্র সংগ্রহ করতে হয় এবং কাজের মান যাচাই বাছাই না করে টাকা বিনিময় প্রত্যয়পত্র দিচ্ছে উক্ত অফিসের কর্মকর্তারাই। আর এই প্রত্যয়নপত্র সংগ্রহ করতে অফিসকে ১০ হাজার থেকে ২০ হাজার টাকা পযর্ন্ত ঘুষ দিতে হচ্ছে। আর অভিযোগ উঠেছে, উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার একেএম হারুন-উর-রশিদ উপজেলায় যোগদানের পর থেকেই শিক্ষা অফিসকে দুর্নীতি-অনিয়ম-ঘুষ বাণিজ্যের আখড়ায় পরিণত করেছেন। উপজেলা শিক্ষা অফিসার একেএম হারুন-উর-রশিদ নিয়মতি অফিস করেন না।

এ বিষয়ে সহকারি উপজেলা শিক্ষা অফিসার বিপ্লব হাসান মদিনার কাছে মুঠোফোন যোগাযোগ করলে তিনি সাংবাদিকদের জানান, আপনি কল রেকর্ড চালু করে আমার সঙ্গে ফাজলামো চোদান। আপনি বেদবি করেছেন বলে ফোনটা কেটে দেন।

উপজেলা শিক্ষা অফিসার একেএম হারুন -উর-রশিদ জানান, মেরামত বা সংস্কারের কাজ শতভাগ বাস্তবায়ন করছি এবং নিবির পর্যবেক্ষণে কাজগুলো সম্পন্ন করি। তিনি আরও জানান, প্রকল্পের কাজের জন‍্য কোন শিক্ষকের কাছে থেকে আমি টাকা নেয়নি।

ফেসবুকে শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এই ধরনের আরো সংবাদ
© All rights reserved © 2022 Agrajatra 24
Design & Develop BY Coder Boss