শুক্রবার, ২০ মে ২০২২, ০৮:৪৪ অপরাহ্ন
শিরোনাম :
রাজাপুরে পৃথক পৃথক জায়গা থেকে দুই ব্যক্তির লাশ উদ্ধার শেখ হাসিনার হাতেই বাংলাদেশ নিরাপদ…..নওগাঁয় খাদ্যমন্ত্রী রাজশাহীর হলিদাগাছিতে ৩ ফসলি জমিতে চলছে পুকুর খনন যশোরে পুরুষ সেজে মধুর প্রেমের সম্পর্কের ফাঁদে ফেলে সর্বস্ব লুটে নিতো তরুণী। যশোরের চৌগাছা সীমান্ত থেকে ১৪ কেজি ৪৫০ গ্রামের ১শ’ ২৪ টি স্বর্ণের বার সহ ১জন আটক। “গ্লোবাল ক্রাইসিস রেসপন্স গ্রুপ” বিশ্ব নেতৃবৃন্দের ছয় সদস্যের একজন শেখ হাসিনা। শার্শা সীমান্তের ইছামতি নদী থেকে অজ্ঞাত এক যুবকের লাশ উদ্ধার যশোরে চোরাই মোবাইলসহ গ্রেফতার ২ লক্ষীপুর মাতৃমঙ্গল হতে বের হয়ে রাস্তায় স্বাভাবিক প্রসবে সন্তান জন্ম “বিট পুলিশিং বাড়ি বাড়ি, নিরাপদ সমাজ গড়ি”

ই’ তিকাফ যা জানা চাই।

Coder Boss
  • সংবাদটি লিখা হয়েছে : শুক্রবার, ২২ এপ্রিল, ২০২২
  • ১৩২ জন পড়েছে

২০ই রমজান সুর্যাস্তের পুর্বে ইতেকাফে বসার সময়। ইতেকাফের বিধি- বিধানঃ

ইতেকাফের শাব্দিক অর্থঃ- ইতেকাফ আরবি শব্দ। অর্থ হলো-বসে থাকা, অবস্থান করা, বিশ্রাম করা, সাধনা করা ইত্যাদি।
পারিভাষিক অর্থঃ- শরয়ী পরিভাষায় যে মসজিদে পাঁচ ওয়াক্ত নামাজ জামাত সহকারে নিয়মিত আদায় করা হয় এমন মসজিদে আল্লাহর ইবাদতের উদ্দেশ্যে নিয়ত সহকারে অবস্থান করাকে ইতেকাফ বলে।

ইতেকাফের শর্তসমূহঃ
(1) মুসলিম হওয়া।
(2) বালিগ বা বালিগা হওয়া।
(3) সুস্থ মস্তিষ্কের অধিকারী হওয়া।
(4) ইতেকাফের নিয়ত করা।
(5) মসজিদে ইতেকাফ করা।
(6) মসজিদে নির্ধারিত স্থান এতেকাফ করা।
(7) রোজা অবস্থায় ইতেকাফ করা।

ইতেকাফ তিন প্রকারঃ
(1) ওয়াজিব ইতেকাফ: ততা মান্নতের ইতেকাফ।
(2) সুন্নত ইতেকাফ : ততা রমজান মাসের শেষ দশদিনের ইতেকাফ।
(3) নফল ইতেকাফ : ততা যেকোনো দিন বা যেকোন সময়ের ইতেকাফ, তবে নফল ইতেকাফ একমুহূর্তেও হতে পারে।

ইতেকাফের জন্য সর্বোত্তম স্থান হল মসজিদে হারাম বা বাইতুল্লাহ , তারপর মসজিদে নববী, তারপর মসজিদুল আকসা, তারপর মসজিদুল জুমা, তারপর মসজিদে পাঞ্জেগানা, আর মহিলাদের জন্য এতেকাফের স্থান হল ঘরের অন্দর মহল।

ইতেকাফকারীর করণীয়ঃ
(1) অধিক পরিমাণে কুরআনুল কারীম তেলাওয়াত করা।
(2) অধিক পরিমাণে দুরুদ পাঠ করা।
(2) অধিক পরিমাণে তাসবীহ-তালীল পাঠকরা।
(4) অধিক পরিমাণে তওবা ইস্তেগফার করা।
(5) অধিক পরিমাণে নফল নামাজ পড়া।
(6) ইলমে দ্বীন চর্চা করা।

ইতেকাফ আমাদের জন্য ও আমাদের পূর্ববর্তীদের জন্য, আল্লাহ তাআলা বিধানভুক্ত করেছেন। আল্লাহ তাআলা বলেছেন:
(وَعَهِدۡنَآ إِلَىٰٓ إِبۡرَٰهِ‍ۧمَ وَإِسۡمَٰعِيلَ أَن طَهِّرَا بَيۡتِيَ لِلطَّآئِفِينَ وَٱلۡعَٰكِفِينَ وَٱلرُّكَّعِ ٱلسُّجُودِ ١٢٥ )
{এবং (আদেশ দিলাম যে,) ‘তোমরা মাকামে ইবরাহীমকে সালাতের স্থানরূপে গ্রহণ কর।’ আর আমি ইবরাহীম ও ইসমাঈলকে দায়িত্ব দিয়েছিলাম যে, ‘তোমরা আমার গৃহকে তাওয়াফকারী, ‘ইতেকাফকারী ও রুকূকারী-সিজদাকারীদের জন্য পবিত্র কর।} [সূরা আল বাকারা:১২৫]

হাদীছ শরীফে আরো বর্ণিত হয়েছেঃ
উম্মুল মু’মিনীন হযরত আয়িশা রাযি: থেকে বর্ণিত। তিনি বলেন, হযরত নবী করীম সা: তার মৃত্যুর আগ পর্যন্ত সব সময় রমজান মাসের শেষ দশ দিন ইতেকাফ করছেন। তার ওফাতের পর তার স্ত্রী গণও ইতেকাফ করেছেন। হাদীসের সনদ সহীহ।( সহীহুল বুখারী)

পাকিস্তানের বিশিষ্ট দ্বায়ী আল্লামা তারেক জামিল হাফিঃ রমজানের শেষ দশ দিনের জন্য চমৎকার এক আমলের ফর্মুলা দিয়েছেন।

১. প্রতিদিন এক দিরহাম (এক টাকা) দান করুন, যদি দিনটি লাইলাতুল ক্বদরের মাঝে পড়ে, তবে আপনি ৮৪ বছর বা ১০০০ মাস পর্যন্ত প্রতিদিন এক টাকা দান করার সাওয়াব পাবেন।

২. প্রতিদিন দুই রাকা’আত নফল সালাত আদায় করুন, যদি দিনটি লাইলাতুল ক্বদরের মাঝে পড়ে, তবে আপনি ৮৪ বছর পর্যন্ত প্রতিদিন দুই রাকা’আত নফল সালাত আদায় করার সাওয়াব পাবেন।

৩. প্রতিদিন তিনবার সূরা ইখলাস পাঠ করুন, যদি দিনটি লাইলাতুল ক্বদরের মাঝে পড়ে, তবে আপনি ৮৪ বছর পর্যন্ত প্রতিদিন এক খতম ক্বুর’আন পাঠের সাওয়াব পাবেন।

তিনি আরো বলেন, এ কথাগুলো মানুষের মাঝে ছড়িয়ে দিন, যারা আপনার এ কথা শুনে আমল করবে, আপনিও তাদের আমলের সমপরিমাণ সাওয়াব পাবেন ইনশাআল্লাহ্। কারণ রাসূলুল্লাহ্ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বলেছেন, “ভালো কাজের পথপ্রদর্শনকারী আমলকারীর সমপরিমাণ সাওয়াব পাবে, কিন্তু আমলকারীর সাওয়াবে কোনো ঘাটতি হবে না।” (মুসলিম, ২৬৭৪)

আল্লাহ্ সবাইকে বেশি বেশি আমল করার তৌফিক দান করুন। আমিন।
@অনুসন্ধানমূলক জাতীয় সাপ্তাহিক পত্রিকা অগ্রযাত্রা। ইয়াছিন আলী, সুনামগঞ্জ প্রতিনিধি।

ফেসবুকে শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এই ধরনের আরো সংবাদ
© All rights reserved © 2022 Agrajatra 24
Design & Develop BY Coder Boss
themesba-lates1749691102