ঢাকারবিবার , ২০ ডিসেম্বর ২০২০
২৫শে মাঘ ১৪২৯ বঙ্গাব্দ ৮ই ফেব্রুয়ারি ২০২৩ খ্রিস্টাব্দ বুধবার
আজকের সর্বশেষ সবখবর

ছাগলনাইয়ায় দুই মাসের শিশুকে রেখে মা উধাও

Agrajatra 24
ডিসেম্বর ২০, ২০২০ ১১:৫৭ পূর্বাহ্ণ
Link Copied!

রিপোটঃ ফেনী প্রতিনিধি:

ফেনী জেলার ছাগলনাইয়া উপজেলায় দুই মাসের এক শিশুকে রাস্তায় পেলে মা উধাও। ঘটনাটি ঘটেছে ছাগলনাইয়া উপজেলার পাঠানগর ইউনিয়নের পূর্ব পাঠানগড় গ্রামে।

গতকাল সকাল ১১:৩০ দিকে ফারজানা আক্তার সুমি (২৫) নামের এ্ক মহিলা, শিশু সন্তানটিকে কন্ট্রাক্টর মসজিদ আবুল বশরের দোকানের সামনে একটি টেবিলের উপর রেখে তার বাবাকে ফোনে বলে চলে যান।

এই শীতের মাঝে এমন অমানবিক নিষ্ঠুরতা কোন মা এমন কাজ করতে পারে আমার বিশ্বাস করতে কষ্ট হইতেছে।

উল্লেখ্য যে, পাঠানগর ইউনিয়নের পূর্ব পাঠানগড় (কন্ট্রাক্টর মসজিদ দুলা হাজী মজুমদার বাড়ীর)
আবুল কালামের ছেলে সাইফুল ইসলামের সহিত ফারজানা আক্তার সুমির গত ১৯/০২/২০১৯ ইং তারিখে পরশুরাম থানার কেতরাঙ্গা গ্রামের (মাস্টার বাড়ী) মোঃ মোস্তফার মেয়ে ফারজানা আক্তার সুমির সহিত বিবাহ বন্ধনে আবদ্ধ হয়।
যার বর্তমান ঠিকানা ছাগলনাইয়া থানাপাড়া। প্রায় ২ বছর সংসার জীবনে তাদের কোলে আসে আশ্রাফুল ইসলাম সৌরভ নামের একটি ফুটফুটে ছেলে সন্তান।

পারিবারিক জীবনে স্বামী-স্ত্রীর মধ্যে ঝগড়া-কলহের জের ধরেই শিশু সন্তানটিকে রাস্তায় রেখে চলে যায় মা সুমি আক্তার। এই ব্যাপারে বাচ্ছার বাবা সাইফুল ইসলামের কাছে জানতে চাইলে তিনি জানান, পেশাগতভাবে আমি কাঠ মিস্ত্রী এবং কন্ট্রেক্টর মসজিদ বাজারে একটি দোকানও আছে।
তিনি আরো জানান, বিবাহের পর থেকেই ফারজানা আক্তার সুমি আমার সাথে ঝগড়া -বিবাদে লেগেই থাকতো। তাকে বুঝানোর চেষ্টা করলে সে ধমক দিয়ে বলতো আমি তোমার সংসার করবো না।

এ নিয়ে তার নিজ বাড়ীতে এলাকার মেম্বারসহ গন্য-মান্য ব্যক্তিদের নিয়ে দুই একবার সমঝোতাও হয়েছে। শিশু বাচ্চাটি সম্পর্কে জানতে চাইলে সাইফুল ইসলাম জানান, সে আমার সাথে ঝড়গা করে গত চার মাস পূর্বে ছাগলনাইয়া থানাপাড়ায় তার বাবার ভাড়া বাসায় চলে যায়।
কিন্তু গত দুই মাস আগে বাচ্চাটি ভুমিষ্ঠ হওয়ার সময় সিজার অপারেশানের সময় আমি প্রায় ২০,০০০/- (বিশ হাজার) টাকা খরচ করি।
বাচ্চাটি দেখতে তাদের বাসায় গেলে তারা আমাকে বাসায় ঢুকতে দেয়নি, ও অ-কথ্য ভাষা ব্যবহার করে।
যার কারণে গত দুই মাস তার সাথে আমার যোগাযোগ কম ছিলো। যার কারণেই আমার বাচ্চাটিকে রাস্তায় পেলে চলে যায়।

পরবর্তীতে বাবা সাইফুল ইসলাম সন্তানকে নিয়ে ছাগলনাইয়া থানায় গিয়ে একটি লিখিত অভিযোগ দায়ের করে। অভিযোগ হাতে পেয়ে ছাগলনাইয়া থানার অফিসার ইনচার্জ মেজবাহ উদ্দিন আহমেদ এস.আই আবু নোমানকে দিয়ে বাচ্চাটিকে তার মায়ের কোলে তুলে দেন এবং আগামী দুই একদিনের মধ্যে তাদের স্বামী-স্ত্রীর মাঝে ভুল বোঝাবুজির অবসান গঠাবেন বলে আশস্থ করেন।

এই সাইটে নিজম্ব নিউজ তৈরির পাশাপাশি বিভিন্ন নিউজ সাইট থেকে খবর সংগ্রহ করে সংশ্লিষ্ট সূত্রসহ প্রকাশ করে থাকি। তাই কোন খবর নিয়ে আপত্তি বা অভিযোগ থাকলে সংশ্লিষ্ট নিউজ সাইটের কর্তৃপক্ষের সাথে যোগাযোগ করার অনুরোধ রইলো।বিনা অনুমতিতে এই সাইটের সংবাদ, আলোকচিত্র অডিও ও ভিডিও ব্যবহার করা বেআইনি।