1. admin@agrajatra24.com : Agrajatra 24 :
  2. Ashrafalifaruki030@gmail.com : আশরাফ আলী ফারুকী : আশরাফ আলী ফারুকী
  3. editor@agrajatra.com : News :
তাহিরপুরে ফসল রক্ষা বাঁধ নির্মান প্রকল্পে প্রকৃত কৃষকদের পিআইসি কমিটিতে নির্বাচিত করুন - Agrajatra24.com
সোমবার, ২৬ সেপ্টেম্বর ২০২২, ০৬:৪৭ অপরাহ্ন
শিরোনাম :
রাজশাহীতে সাংবাদিকের ওপর হামলাকারীদের গ্রেপ্তার সহ শাস্তির দাবিতে মানববন্ধন ও সমাবেশ দোকানদার কৃষি কর্মকর্তা শফিকের হামলার শিকার অগ্রযাত্রার সাংবাদিক(ভিডিও সহ) র‌্যাবের-১৩ অভিযানে ৫০৩ পিস ইয়াবাসহ ২,মাদক চোরাকারবারি গ্রেফতার বাগমারায় উপজেলা চেয়ারম্যানের দায়িত্বে আসাদুজ্জামান আসাদ দোয়ারাবাজারে আশ্রয়ণ প্রকল্পের ঘর পরিদর্শন সহ বিভিন্ন কর্মসূচিতে বিভাগীয় কমিশনার ডামুড্যায় পূজামন্ডপের প্রস্তুতি পরিদর্শনে ইউএনও হাছিবা খান গাইবান্ধার সুন্দরগঞ্জে বিশ্ব নদী দিবস উদযাপন আজ সনাতন ধর্মাবলম্বিদের পবিত্র মহালয়া। এ উপলক্ষে নিচের লেখাটি পাইকগাছায় আইনজীবী মোহতাছিম বিল্লাহর বাসা থেকে বাল্যবিবাহ প্রস্তুতকালে ১১ বছরের কন্যাসহ আটক ০৭ পাইকগাছা লতা ইউনিয়নে সুপেয় পানি সরবরাহের প্রকল্প উদ্ধোধন। সুন্দরগঞ্জে শেষ মূহুর্তে রং তুলির আঁচড়ে ফুটিয়ে উঠছে প্রতিমা রাঙ্গাবালী’তে ১৩ বছর পর যুবলীগের বর্ধিত সভা অনুষ্ঠিত খুলনা জেলা প‌রিষদ নির্বাচন উপল‌ক্ষে পাইকগাছা আওয়ামী লীগের মতবিনিময় সভা কয়রায় ম‌হিলার গা‌য়ে এ‌সিড নি‌ক্ষে‌পের অ‌ভি‌যোগ ছাতকে প্রতিপক্ষের হামলায় আহত ১: গ্রেফতার ৩ ওসি তদন্তের শত চেস্টায়ও বাঁচানো গেলোনা আহত কাওসারকে ডামুড্যায় আশ্রয়ণ প্রকল্পের পরিদর্শনে প্রধানমন্ত্রীর কার্যাল‌য়ের প‌রিচালক গোসাইরহাট সার্কেল অফিস ও ডামুড্যা থানা পরিদর্শনে শরীয়তপুরের এসপি মোঃ সাইফুল হক সুনামগঞ্জ দোয়ারাবাজার থানার আয়োজনে সর্বসাধারণের মতামত ও সমস্যা নিয়ে পুলিশের সঙ্গে ওপেন হাউজ ডে অনুষ্ঠিত হয়েছে, রাজশাহী জেলা নাগরিক সমাজ সংগঠনের ত্রৈমাসিক সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে

তাহিরপুরে ফসল রক্ষা বাঁধ নির্মান প্রকল্পে প্রকৃত কৃষকদের পিআইসি কমিটিতে নির্বাচিত করুন

  • সংবাদটি লিখা হয়েছে : মঙ্গলবার, ২২ ডিসেম্বর, ২০২০
  • ২৯৭ জন পড়েছে

জয়নাল আহমেদ, স্টাফ রিপোর্টারঃ-কাবিটা নীতিমালা ২০১৭ অনুযায়ী হাওর রক্ষা বাঁধের প্রকল্প বাস্তবায়ন কমিটি (পিআইসি) গঠনের বাধ্যবাধকতা রয়েছে। অকাল বন্যার হাত থেকে হাওরের ফসল সুরক্ষায় সরকার ২০১৭ সালে সংশোধিত কাবিটা নীতিমালা প্রণয়ন করে।

উল্লেখ্য যে, ২০১৭ সালে হাওরে বন্যায় ব্যাপক ফসলহানীর পর হাওরবাসীর দাবীর প্রেক্ষিতে সরকার কাবিটা নীতিমালা-২০১৭ প্রণয়ন করে। নীতিমালায় হাওরের ফসলরক্ষা বাঁধের কাজে ঠিকাদারি প্রথা বাতিল করে সম্পূর্ণরূপে কৃষকদের সমন্বয়ে পিআইসির মাধ্যমে বাঁধ নির্মাণ করার নীতি প্রবর্তন করেন। এ নীতিমালায় আগের চেয়ে হাওরের ফসল রক্ষা বাঁধের কাজ অনেক ভালো হচ্ছে বলে জানান কৃষকরা। তবে নির্ধারিত ২৮ ফেব্রুয়ারির মধ্যে কাজ শেষ করতে না পারলে এবং তাড়াহুড়োর কারণে কাজের মান বজায় রাখতে না পারলে হাওরের ফসল রক্ষা কঠিন চ্যালেঞ্জের মধ্যে পড়ে যায়। যা কারো কাম্য নয়।

প্রতি বছরেই বিভিন্ন ইলেকট্রিক ও প্রিন্ট মিডিয়ায় দেখা যায় যে,হাওরে জমি নেই,প্রকৃত কৃষক নন তারাও হাওর রক্ষা বাঁধের প্রকল্প বাস্তবায়ন কমিটি (পিআইসি)র সভাপতি, সহ-সভাপতি। এরকম সংবাদ যেন নতুন কিছুই নয়। তবে অনেকেই বিভিন্ন দলের নেতা-কর্মী হিসেবে যুক্ত হচ্ছেন হাওর রক্ষা বাঁধের প্রকল্প বাস্তবায়ন কমিটি (পিআইসি)তে।

তবে হাওরাঞ্চলের প্রকৃত কৃষকরা জানান, আমরা কৃষক। কৃষি আমাদের প্রধান উপজীবিকা। আমরা সারা বছর রোদে পুড়ে, বৃষ্টিতে ভিজে, শক্ত হাতে লাঙল ধরে এই মাটির বুকে সোনার ফসল ফলাই। আমরাই বাংলার প্রকৃত কৃষক। আমাদের ঘাম ও রক্ত দিয়ে এই দেশের সমৃদ্ধ হচ্ছে। আমরাই দেশের সব মানুষের খাদ্য উৎপাদন করায় সাহায্য করছি। নিঃস্বার্থ ভাবে দেশ ও দেশের জমির উন্নতিতে অবদান রেখে যাচ্ছি। দেশের শতকরা ৮০ ভাগ কৃষির সাথে সম্পৃক্ত। খেয়ে না খেয়ে কোনো রকম সংসার চলে আমাদের। বছরে আমাদের তাহিরপুর উপজেলার ছোট-বড় ৮টি হাওরে একবার ফসল ফলানো হয়। এই এক ফসলের উপরেই নির্ভর করে আমাদের পরিবার। বন্যার হাত থেকে ফসল সুরক্ষায় সরকার ২০১৭ সালে সংশোধিত কাবিটা নীতিমালা প্রণয়ন করেন। নীতিমালায় হাওরের ফসলরক্ষা বাঁধের কাজে ঠিকাদারি প্রথা বাতিল করে সম্পূর্ণরূপে কৃষকদের সমন্বয়ে পিআইসির মাধ্যমে বাঁধ নির্মাণ করার নীতি প্রবর্তন করেন।কিন্তু বর্তমানে দেখা যায় যে, কৃষকদের সমন্বয় ছাড়াই পিআইসির কমিটি গঠন করা হয়। তখন পিআইসির সভাপতি হন কৃষক নন ও হাওরে জমি নেই এমন ব্যক্তি। আবার বিভিন্ন দলের প্রভাব খাটিয়ে হচ্ছেন পিআইসি কমিটির সভাপতি। এদিকে বিভিন্ন দলীয় নেতারা পিআইসি কমিটিতে সভাপতি – সহ-সভাপতি দিবেন বলে শুরু করেন ব্যবসা-বাণিজ্য। এক পর্যায় দেখা যায় নেতারাই সফল। তবে এবছর আমাদের দাবী কৃষকদের সমন্বয় নিয়ে উপজেলার সবকটি হাওর ও মহালিয়া হাওরে প্রকৃত কৃষক কে হাওর রক্ষা বাঁধের প্রকল্প বাস্তবায়ন কমিটি (পিআইসি) তে রাখা হউক।

উপজেলার মহালিয়া হাওরের প্রকৃত কৃষক(সুলেমানপুর গ্রামের স্থায়ী বাসিন্দা) দিলোয়ার হোসেন (সবুজ) জানান, আমি কৃষি কাজের উপর নির্ভরশীল। কৃষিকাজ করাই আমার পেশা। আমি কোনো প্রকার রাজনীতির সাথে জড়িত নয়। মহালিয়া হাওরে প্রতিবছর আমি, আমার বাবা ও ভাইয়েরা মিলে প্রায় পাঁচ থেকে ছয় হাল(প্রতি হালে ১২ কিয়ার) কৃষি জমিতে ফসল ফলাই। আমার বাবার অবশিষ্ট কৃষি জমিগুলোতে অন্যান্য কৃষকেরা ফসল ফলিয়ে থাকে। বছরে একটি ফসল করার সুযোগ আমাদের হাওরে। এই একটি ফসলেই আমাদের একমাত্র ভরসা। প্রতি বছর আগাম বন্যা দেখা দিয়ে থাকে। সেক্ষেত্রে বন্যা প্রতিহত করতে হলে আমাদের হাওরের বাঁধ গুলো মজবুত হতে হবে। প্রথম দুই বছর আমি মহালিয়া হাওরে পিআইসি কমিটিতে ছিলাম।২০১৯ সালে বিভিন্ন নেতার দাপটে পিআইসি কমিটিতে আমাকে রাখা হয় নি। এবছর ও শুরু হয়েছে বিরোধ। অনেকেই মন্তব্য করছেন,তকে পিআইসি কমিটিতে রাখা হবে না। তবে আমার দাবী বাঁধ নির্মাণে কোনো অনিয়ম না করে ও প্রকৃত কৃষকের সমন্বয় নিয়ে যেকোনো কৃষকের মাঝে পিআইসি কমিটির অনুমোদন দেওয়ার জন্য সবার সুদৃষ্টি কামনা করি। মনে রাখবেন ‘‘হাওর বাঁচলে, আমরাও বাঁচবো’’।

অন্যান্য কৃষকের সময়ের দাবী,আমরা কোনো দল বুঝি না। বিএনপি, আওয়ামীলীগ বুঝি না, আমরা বুঝি আমরা কৃষক। আমাদের হাত দিয়ে ফসল ফলাই হাওরে। সেই কষ্টের মর্ম কি বুঝবে একজন নেতা। নেতারা কি কোনো দিন জমিতে হাল-চাষ করে দেখেছেন। তাহলে আপনারা কেন কৃষকদের নিয়ে রাজনীতি করেন। পিআইসি কমিটি গঠনের সময় আসলেই আপনাদের পাওয়া যায় বিভিন্ন অফিস-আদালতে । কেন আপনার এই দৌড় যাপ? প্রশ্ন করুন নিজের বিবেক কে। আপনার রাজনীতি করুন, ভালো কথা।আমরা আপনাদের বাঁধা দেবো না। আপনার দয়া করে পিআইসি কমিটি গঠনে দলীয় প্রভাব খাটানো বন্ধ করুন।আমরা চাই আমাদের ফসলের নিরাপত্তা। তাই প্রকৃত কৃষকের মাঝে পিআইসি কমিটির অনুমোদন দিন ও পিআইসি কমিটি দেওয়ার নামে বিভিন্ন দলীয় নেতাদের বাণিজ্য বন্ধ করে দেওয়া হউক?

ফেসবুকে শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এই ধরনের আরো সংবাদ
© All rights reserved © 2022 Agrajatra 24
Design & Develop BY Coder Boss