সোমবার, ২৩ মে ২০২২, ০৪:৪৩ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম :
দিনব্যাপী আয়োজনে গলাচিপায় মৎস্যজীবী লীগের ১৯ তম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী উদযাপন ভুয়া ও জাল কাগজপত্র দিয়ে জামিন লাভ করায় আনসার সদস্য মিজানের বিরুদ্ধে গ্রেফতারী পরোয়ানা হাটগাঙ্গোপাড়া মডেল প্রেসক্লাবের উদ্যোগে নবাগত পুলিশ ইন্সপেক্টরকে ফুলেল শুভেচ্ছা গাইবান্ধার সুন্দরগঞ্জে বোরো ধানের বাম্পার ফলন জামালপুরে ভুমি সেবা সপ্তাহ-২০২২ ও এলএ চেক বিতরণ অনুষ্ঠানের উদ্ভোদন- রাজাপুরে মিথ্যা মামলা দিয়ে হয়রানির প্রতিবাদে আওয়ামী লীগ নেতার বিরুদ্ধে সংবাদ সম্মেলন রাজাপুরে বিদ্যুৎ পৃষ্টহয়ে গৃহবধুর মৃত্যু শার্শার ইছামতি নদীতে পাওয়া যুবকের লাশ রাজশাহীর বাঘায় নিজবাড়িতে দাফন। সাতক্ষীরা পানি উন্নয়ন বোর্ড কতৃক সাংবাদিক ইয়ারব হোসেনকে বেধড়ক পিটিয়ে আহত। নাটোরের নলডাঙ্গায় ভূমি সেবা সপ্তাহের শুভ উদ্বোধন ও আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত

দামুড়হুদায় বোরো ধানক্ষেতে নেকব্লাস্ট (শিষ মরা) রোগে আক্রান্ত দিশেহারা কৃষক

চুয়াডাঙ্গা প্রতিনিধিঃ
  • সংবাদটি লিখা হয়েছে : বুধবার, ৭ এপ্রিল, ২০২১
  • ১৯১ জন পড়েছে

চুয়াডাঙ্গার দামুড়হুদায় বোরো ধানক্ষেতে নেকব্লাস্ট (শিষ মরা) রোগ ছড়িয়ে পড়েছে। বোরো আবাদের প্রায় শেষ মুহূর্তে এসে ধানক্ষেতগুলো এ রোগে আক্রান্ত হওয়ায় কৃষকরা দিশেহারা হয়ে পড়েছেন।

কৃষি বিভাগ রোগ প্রতিরোধে এলাকায় কৃষকদের ক্ষেত পরিদর্শন করে এর প্রতিরোধে করনীয় বিষয়ে পরামর্শ দিচ্ছেন।

দামুড়হুদা উপজেলায় এবার বোরো ধান চাষের লক্ষমাত্রা ছিলো ৮হাজার ৯৪০হেক্টর জমিতে। কিন্তু চাষ হয়েছে ১০হাজার ১৬৯ হেক্টর জমিতে। যা লক্ষমাত্রার চেয়ে ১২২৯ হেক্টর জমিতে বেশী। তবে কিছুটা ফলন কিছুটা কম হতে পারে।

উপজেলার পুড়াপাড়া,উজিরপুর,কার্পাসডাঙ্গা,কুড়ুলগাছি,চন্ডিপুর,সাড়াবাড়ীয়া,বলদিয়াসহ বিভিন্ন গ্রামের মাঠের ধানক্ষেতে এই নেকব্লাস্ট রোগ দেখা দিয়েছে। এই রোগে ধানের পাতা সবুজ দেখা গেলেও শিষ শুকিয়ে মারাযাওয়ার কারনে চিটা হয়ে যাচ্ছে।

উপজেলার পুড়াপাড়া গ্রামের কৃষক সুকুমার কর্মকার বলেন, এবার একবিঘা জমিতে বোরো ধানের চাষ করেছেন। ইতোমধ্যে ধান প্রায় শিষ বেরিয়ে শেষ হয়েছে ২০/২৫ দিনের মধ্যে ধান পেকে যাবে। এমন সময় তার জমির ধানক্ষেতে বøাস্ট রোগ দেখা দিয়েছে। কোন বালাই নাশক দিয়ে ঠিকমত কাজ হচ্ছে না। এই রোগ সারা ক্ষেতে ছড়িয়ে পড়লে ধানের বেশির ভাগ চিটা হয়ে যাবে এতে সে অপূরণীয় ক্ষতির আশংখা করছেন।

উপজেলার সীমান্তবর্তী কুড়–লগাছি গ্রামের কৃষক হোসেন আলি,মনিরুজ্জামান ও পীরপুর কুল্লা গ্রামের মুনছুর আলি ও শওকত আলি বলেন, আর মাত্র ২০/২৫ দিনের মধ্যে তাদের মাঠে ধান কাটার কাজ শুরু হবে। এমন সময়ে ক্ষেতে শিষ মরা রোগ দেখা দিয়েছে। দুর থেকে দেখলে মনে হচ্ছে ধান পেকে গেছে। কিন্তু কাছে গেলে বোঝা যাচ্ছে ধানের শিষগুলো মরে শুকিয়ে চিটা হয়ে গেছে। এই রোগ প্রতিরোধ করা না গেলে ব্যাপক ক্ষতির আশংখা করছেন তারা।

দামুড়হুদা উপজেলা কৃষি অফিসার মনিরুজ্জামান জানান, উপজেলার কিছু কিছু এলাকায় এই রোগ দেখা দিয়েছে। তবে তা ব্যাপক আকার ধারন করেনি। এই বোরো ধানে তাপমাত্রা ২৭/২৮ ডিগ্রি সহনশীল কিন্তু জেলায় ৩৮ডিগ্রি সেলসিয়াস পর্যন্ত তাপমাত্রা বেড়ে যাওয়ায় প্রচন্ড খরা ও ভ্যাপসা গরম,রাতে ঠান্ডা পড়ার কারণে ধানক্ষেত নেকব্লাস্ট রোগে আক্রান্ত হচ্ছে। আমরা নিয়মিত পরিদর্শন করছি ও এর প্রতিরোধে কৃষকদের কে করনিয় বিষয়ে পরামর্শ দিচ্ছি। পরামর্শ মত কৃষকরা ব্যবস্থা নিলে এই রোগ আর বাড়বেনা বলে ও তিনি আশা করছেন। তবে লক্ষমাত্রার চেয়ে চাষ বেশি হলেও এই ভাইরাস জনিত রোগের কারনে ফলন কিছুটা কম হতে পারে।

ফেসবুকে শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এই ধরনের আরো সংবাদ
© All rights reserved © 2022 Agrajatra 24
Design & Develop BY Coder Boss
themesba-lates1749691102