ঢাকাসোমবার , ১৫ ফেব্রুয়ারি ২০২১
১৬ই মাঘ ১৪২৯ বঙ্গাব্দ ৩০শে জানুয়ারি ২০২৩ খ্রিস্টাব্দ সোমবার
আজকের সর্বশেষ সবখবর

মহাসমারোহে অনুষ্ঠিত হচ্ছে সনাতন ধর্মাবলম্বীদের বিদ্যার দেবী শ্রী শ্রী সরস্বতী মাতার পূজা

Agrajatra 24
ফেব্রুয়ারি ১৫, ২০২১ ৮:৪৪ অপরাহ্ণ
Link Copied!

নয়ন কুমার বর্মন –

সংগৃহীত তথ্যনুসারেঃ-
সরস্বতী হলেন জ্ঞান, সংগীত, শিল্পকলা, বুদ্ধি ও বিদ্যার দেবী এবং ব্রহ্মার পত্নী। তিনি সরস্বতী-লক্ষ্মী-পার্বতী এই ত্রিদেবীর অন্যতম। এই ত্রিদেবীর কাজ হল ব্রহ্মা, বিষ্ণু ও শিবকে যথাক্রমে জগৎ সৃষ্টি পালন করতে সাহায্য করা।দেবী সরস্বতীর বাহন হংস এবং আবাস স্থল হচ্ছে ব্রহ্মলোক। দেবীর হিন্দু পুরাণ অনুসারে এই পবিত্র দিনেই দেবী সরস্বতীর জন্ম হয়। হিন্দু পুরাণে বলা হয় সরস্বতীর প্রথম উল্লেখ পাওয়া যায় ঋগ্বেদে। বৈদিক যুগ থেকে আধুনিক যুগ পর্যন্ত তিনি হিন্দুধর্মের একজন গুরুত্বপূর্ণ দেবী।হিন্দুরা বসন্তপঞ্চমী (মাঘ মাসের শুক্লাপঞ্চমী তিথি) তিথিতে সরস্বতী পূজা করে।এই দিন ছোটো ছোটো ছেলেমেয়েদের হাতেখড়ি হয়।বৌদ্ধ ও পশ্চিম ও মধ্য ভারতে জৈনরাও সরস্বতীর পূজা করেন। জ্ঞান, সংগীত ও শিল্পকলার দেবী হিসেবে ভারতের বাইরে জাপান, ভিয়েতনাম, বালি (ইন্দোনেশিয়া) ও মায়ানমারেও সরস্বতী পূজার চল আছে।

কথায় বলে, ‘বাঙালীর বারো মাসে তেরো পার্বণ’। সেই সব পার্বণের মধ্যেই একটি প্রাচীন ও অতি পরিচিত ঐতিহ্যমণ্ডিত পূজা হল বিদ্যার দেবী সরস্বতীর পূজা। মাঘ মাসে শুক্ল পঞ্চমী তিথিতে সরস্বতী মায়ের পূজা করা হয়। দেবী সরস্বতীর পূজা প্রাচীন যুগ থেকেই বাঙালীর হৃদয় ও অন্তরে সমাদৃত হয়ে আসছে। তিনি শুক্ল বর্ণ, শুভ্র হংসবাহনা, বীণা রঞ্জিত পুস্তক হস্তে অর্থাৎ একহাতে বীণা ও অন্য হাতে পুস্তক।
হিন্দু ধর্মাবলম্বীদের কাছে অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ একটি উত্‍সব স্বরস্বতী পূজা । শীতকালের পর বসন্ত ঋতুতে প্রথম যে উত্‍সব পালিত হয়, তা হল সরস্বতী পুজো। সরস্বতী পুজোর এই বিশেষ দিনটি বসন্ত পঞ্চমী ছাড়াও শ্রী পঞ্চমী এবং সরস্বতী পঞ্চমী নামেও পরিচিত।

সরস্বতী পুজো ২০২১-এর দিনক্ষণ, এই বছর ১৬ ফেব্র‌ুয়ারি বাংলাদেশের সবজায়গায় পালিত হবে সরস্বতী পুজো। সরস্বতী পুজোর সময় পড়েছে ১৬ ফেব্র‌ুয়ারি সকাল ৬টা ৫৯ মিনিট থেকে শুরু হয়ে বেলা ১২টা ৩৫ মিনিট পর্যন্ত। সকালে স্নান সেরে সাদা বা হলুদ পোশাক পরে সরস্বতী পুজোর জন্য প্রস্তুত থাকার পরামর্শ দেওয়া হচ্ছে।

সরস্বতী পুজো বা বসন্ত পঞ্চমীতে হলুদ রঙের বিশেষ গুরুত্ব আছে। হলুদ রং সমৃদ্ধি, আলো ও পজিটিভ শক্তির প্রতীক। এই সময় শীত ঋতুর বিদায় ও বসন্ত ঋতুর আগমনে এই শুভক্ষণে নতুন করে যেন সেজে ওঠে প্রকৃতি। এই সময় নানা রঙের ফুল ফোটে, শোনা যায় পাখিদের কলকাকলি, কোকিলের কুহুরব। প্রকৃতির এই সেজে ওঠারই যেন ছবি তুলে ধরা হয় হলুদ রঙের মধ্যে দিয়ে। সেই কারণে এদিন হলুদ পোশাক পরার প্রথা রয়েছে।

সরস্বতীর প্রনাম মন্ত্রঃ
ওঁ ঐঁ সরস্বত্যৈ নমঃ
গায়ত্রী মন্ত্র : ওঁ বাগদেব্যৈ বিদ্মহে ব্রহ্মরাজায় ধীমহি তন্নোঃ দেবী প্রচোদয়াৎ।,ওম শান্তি ব্রম্যবা প্রিয়ে নমঃ স্তুতি

এই সাইটে নিজম্ব নিউজ তৈরির পাশাপাশি বিভিন্ন নিউজ সাইট থেকে খবর সংগ্রহ করে সংশ্লিষ্ট সূত্রসহ প্রকাশ করে থাকি। তাই কোন খবর নিয়ে আপত্তি বা অভিযোগ থাকলে সংশ্লিষ্ট নিউজ সাইটের কর্তৃপক্ষের সাথে যোগাযোগ করার অনুরোধ রইলো।বিনা অনুমতিতে এই সাইটের সংবাদ, আলোকচিত্র অডিও ও ভিডিও ব্যবহার করা বেআইনি।